আজ শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন


উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানের দরজায় ব্যতিক্রমী লেখাব

এইচ.কে.শরীফ সালেহীন::আমাদের দেশে সাধারণ মানুষ অনেক সময় জনপ্রতিনিধির সেবা থেকে বঞ্চিত হন,কারণ তারা ডিঙাতে পারেন না জনপ্রতিনিধির অফিসের দরজা। উপজেলার সাধারণ মানুষের মধ্যে সেই দূরত্ব কমাতে এবার ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ নিয়েছেন সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম আম্ভিয়া কয়েছ।

নিজের কার্যালয়ের সামনে গোয়াম আম্ভিয়া কয়েছ ঝুলিয়ে দিয়েছেন একটি কাগজ,সেখানে লেখা রয়েছে,এ অফিস আপনাদের,অফিসে প্রবেশের জন্য অনুমতির প্রয়োজন নেই,

গত ১০ জুন সোমবার নোটিস টাঙানোর পর বেশ সাড়া পড়েছে গোয়াইনঘাট উপজেলাতে।যে কোনো প্রয়োজনে কৃষক, শ্রমিকসহ সাধারণ মানুষ নির্ভয়ে কড়া নাড়ছে এই জনপ্রতিনিধির দরজায়।

এমন সব উদ্যোগকে প্রসংশা করে ফেসবুকে পোস্ট করেছেন অনেক।কামরুল ইসলাম নামের একজন লিখেছেন,এমন মানসিকতার জনপ্রতিনিধিরা বড়ই অভাব।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম আম্ভিয়া কয়েছের সঙ্গে তিনি সাংবাদিকদের বলেন।অফিসগুলো তৈরি করা হয় জনসাধারণের কাজের জন্য।আমি যদি আমার অফিসে প্রবেশের জন্য কাউকে বাধা দিই, অফিসের ও সাধারণ মানুষের মাঝে পর্দা দিই,দেয়াল তুলি,তাহলে তারা কীভাবে সেবা নেবে।আমরা চাই জনসাধারণের সঙ্গে জনপ্রতিনিধির কোনো দূরত্ব থাকবে না।জনসেবার জন্যই আমাদের নির্বাচিত করেছে জনগণ।আমার এখানে সেবা নিতে এসে অনেকেই অনুমতি চান।আমার অফিসে আসার জন্য অনুমতির কেন প্রয়োজন পড়বে?

কার্যালয়ে নোটিস লাগানোর পর জনসাধারণের মাঝে অনেক পরিবর্তন এসেছে বলে জানান।তিনি বলেন,প্রতিদিন  আমার অফিসের সামনে অনেক লোক জড়ো হয়ে থাকতো।ভয়ে অনেকে ভেতরে প্রবেশ করতো না।এখন সবাই নির্ভয়ে তাদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অফিসে কথা বলতে আসেন।প্রত্যেক উপজেলায় এমনিভাবে একটি চেয়ার সংরক্ষিত রাখা হলে যেমন দেশের প্রতি দেশাত্মবোধ জাগবে তেমনি জনপ্রতিনিধির প্রতি সম্মান বৃদ্ধি পাবে।