আজ মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ১১:২৯ অপরাহ্


চিনি শিল্পের প্রাণ হলো মিলের শ্রমিক-কর্মচারী

আাকাশ খাঁনঃ পাবনা প্রতিনিধি

বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের চেয়ারম্যান, অজিত কুমার পাল বলেছেন,’কী করে চিনি মিলের চাকা ৩ মাস নয়, কী-করে ১২ মাস ঘুরবে? মিলের চাকা ঘুরলেই শিল্প বাঁচবে, আর শিল্প বাঁচলেই দেশে শ্রমিকের অর্থনৈতিক মুক্তি মিলবে।,

সোমবার (৭ অক্টোবর ) বিকেলে ‘আসন্ন মাড়াই মৌসুমে পাবনা চিনিকলের রক্ষণাবেক্ষণ ও মেরামত কাজের অগ্রগতির বিষয়ে,’ কারখানার শ্রমিক-কর্মচারী এবং আখ চাষিদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

পাবনা চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কৃষিবিদ মোহাঃ আবদুস সেলিমের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অজিত পাল বলেন,’অর্থ ছাড়া যেমন সংকট যায় না,অর্থ ছাড়া উন্নয়ন যেমন সম্ভব নয়,অর্থ ছাড়া পরিকল্পনা তেমন হয় না। অর্থের যোগান আছে কারণ, প্রতি মৌসুমে এই পাবনা চিনিকলে ৩ হাজার টন চিনি উৎপাদন হয়। ৫০ টাকা দরে বিক্রি হলে ১৫০ কোটি টাকা। অথচো সেই চিনির দাম নেই। দাম কমতে কমতে এমন জায়গায় এসেছে,যে চিনির দামের ডাবল গুড়ের দাম। তবে এই শিল্প আবারও ঘুরে দাঁড়াবে। সরকার স্বল্প, মধ্যম এবং দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। সরকারের এসব নতুন নতুন পরিকল্পনা খুব শিগগিরই বাস্তবায়ন করা হবে।

শ্রমিক-কর্মচারী ও কৃষকদের উদ্দেশ্যে বলেন,
চিনি শিল্পের প্রাণ হলো মিলের শ্রমিক-কর্মচারী। আর এই শিল্পকে বাঁচিয়ে রেখেছেন কৃষক। অথচো যে দপ্তরে কথা বলতে গিয়েছি,তারা বিরক্তি হয়ে বলেছেন,’ চা বিস্কুট খাও, বাড়ি চলে যাও।,তবুও হাল ছাড়িনি এই শিল্পকে কীভাবে আরও বেগবান করা যায়, কীভাবে এর আয় বাড়ানো যায়। কীভাবে কৃষকের ৩৮৪ কোটি টাকা শোধ দিয়ে চাষিদের থেকে এক হাতে আখ এক হাতে টাকা দেওয়া যায়। কোন উপায়ে আগামীতে লাভের মুখ দেখবে এই শিল্প । কীভাবে এই শিল্পকে রক্ষা করা যায়,সে লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছি।

তিনি ব্যঙ্গ করে বলেন, একবার বাংলাদেশ ব্যাংক এর কাছে গিয়েছিলাম! তারা এই শিল্পকে সহায়তা করতে চাই না। তখন বললাম, ‘তোমরা তো হাজার কোটি টাকা বিভিন্ন কোম্পানিকে লোন দিয়েছো। আর নিজ দেশের একটি শিল্প,চিনি শিল্প,এ শিল্পের জন্য সহায়তা করবে না? আমি কোন দেশপ্রেমিক এর সাথে কথা বলছি না! আমি যাদের সাথে কথা বলছি! তারা দেশপ্রেমিক নই! এ সময় আমার সাথে বেশ তিক্ততা শুরু করলো। জবাবে বললাম,’ টাকা দিয়ে দিন,মাফ চাইবো,টাকা না দিলে আরও কিছু বলব, অনেক কষ্ট করে, যুদ্ধ করে তিক্ততা সৃষ্টি করে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ঋণ পাওয়ার ব্যবস্হা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়া আর সরকারের কাছ থেকে আরও কিছু সহায়তা পাবার জন্য কর্মপরিকল্পনা নিয়ে কাজ শুরু করেছি।

মতবিনিময় সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, পাবনা চিনিকল ওয়াকার্স ইউনিয়নের সভাপতি সাজেদুল ইসলাম শাহিন, সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল, কারখানা শ্রমিক, আবু তাহের, আবদুল মান্নান প্রমুখ।এসময় চিনিকলের বিভিন্ন বিভাগের কমকর্তা কর্মচারী, সিডিএ, সিআইসি ও আখ চাষিরা উপস্থিত ছিলেন।

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১