আজ শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৬:৫১ অপরাহ্


সাংবাদিককে গালমন্দ,আ’লীগ সভাপতির বিরুদ্ধে ইউএনও বরাবরে অভিযোগ

ষ্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলায় সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে অশ্রাব্য ভাষায় গালমন্দ করায় জামালগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন মিডিয়ার সংবাদকর্মীরা বুধবার (১জানুয়ারি) বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগে বলা হয়, চলতি বছর জামালগঞ্জ উপজেলার কাবিটা বাস্তবায়ন প্রকল্প কমিটিতে দৈনিক যুগান্তর ও দৈনিক সবুজ সিলেট পত্রিকার জামালগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি এবং জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিবকে ইউনিয়নের হাওর রক্ষা বাঁধের কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত করায়, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোহাম্মদ আলী ক্ষিপ্ত হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়েই সরকারি বেসরকারী কর্মকর্তা ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের সম্মুখে সাংবাদিক হাবিবুর রহমানকে নানারকম অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করে।
তিনি অশ্লীল ভাষায় বলেন, ‘এই ফকিন্নির পুত সাংবাদিককে কমিটিতে কে দিয়েছে, ভাত খাইতে পায় না আবার তারে কমিটি দিছে, এরকম কত সাংবাদিক আমি পয়দা করি।’
এতে উপজেলায় বিভিন্ন মিডিয়ার অন্যান্য সংবাদকর্মীরা নোংরা ভাষা ও আক্রমনাত্মক উক্তির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ৯ জন স্বাক্ষরিত লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, উনি (আওয়ামীলীগ উপজেলা সভাপতি) শুধু একজন মুরুব্বী নন, একজন গণমাধ্যমকর্মীর পিতা। যাকে তিনি ফকিন্নির পুত বলেছেন, তার বাবা তিনবার ইউপি সদস্য ছিলেন, তার ভাইও প্রাক্তন ইউপি সদস্য এবং বর্তমানে হাবিবুর রহমান নিজেও ইউপি সদস্য এবং ১নং প্যানেল চেয়ারম্যান। সে ফকিন্নির পুত্র হলেও জনগণ তাকে ভোট দিয়ে প্রতিনিধি নির্বাচিত করেছেন। একজন দায়িত্বশীল সাংবাদিক ও জনপ্রতিনিধিকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ ও তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যভাবে সভা-সমক্ষে অপমান করায় উপজেলার সহযোগি সাংবাদকর্মীরা এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান।
অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, জামালগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের দাম্ভিক সভাপতির পয়দাকৃত পুত্র আকবর হোসেন এর অনৈতিকতার জন্য বিগত ২০১৩ সালে ১৬ ডিসেম্বর মাসে ফেইসবুকে একটা অপপ্রচারের কারণে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে বর্তমান এমপিসহ শতশত লোকের সামনে (আকবর হোসেন) করজোর অবস্থায় হাটুগাড়া দিয়ে হাতজোর অবস্থায় ঘন্টাখানেক নিলডাউন ছিল। তার গুণধর সাংবাদিক পুত্র আকবর হোসেনকে সেই অবস্থায় দেখে তখন তিনি মনের কষ্টে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেছিলেন সে (আকবর হোসেন) আমার পুত্র নয়, সে পানিতে নয়তো আগুনে পুরে মরবে। বিগত দিনে তারই পয়দা করা সাংবাদিক পুত্র আকবরকে জামালগঞ্জ পিআইও অফিস থেকে যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের ছেলেরা পেন্টের বেল্ট দিয়ে প্রকাশ্যে পিটিয়ে অর্ধ-উলঙ্গ অবস্থায় ফেলে রেখেছিল। এবং তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল হাসেম সরকারি পুকুর থেকে মাছ চুরির অপরাধে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৩ মাসের সাজা দিয়েছিলেন। কিছু দিন জেলখাটার পর থেকে জামিনে বের হয়ে আকবর হোসেন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠে। হাজী মোহাম্মদ আলী তার গুণধর চাঁদাবাজ পুত্রের মত সবাইকে এককাতারে সামিল করায়, অন্যান্য সাংবাদিকরা এতে নিজেদের সাংবাদিকতা পেশাকে অপমানিত করা হয়েছে বলে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।
জামালগঞ্জ উপজেলায় বিভিন্ন মিডিয়ার কর্মরত স্থানীয় সংবাদকর্মীরা আরো জানান, বর্তমান আ”লীগ সভাপতি অতীতে এক সময় মাছ বিক্রি করে সংসার চালাতেন। পরে ক্রমান্বয়ে অবস্থার উন্নতি ঘটান। সরকারী ভূমি জবরদখলকারী হাজী মোহাম্মদ আলী ও তার পুত্র কথিত চাঁদাবাজ সাংবাদিক আকবর হোসেন দলীয় দাপট খাটিয়ে এলাকার ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন। উল্লেখ্য যে, বিগত বছরের মতো এবছরও দলীয় প্রভাব খাটিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করে তিনি নিজেও পিআইসি নিয়েছেন এবং সাংবাদিক পুত্র আকবর হোসেনকে দিয়ে হাওরবাঁধের আরো ১৯টি পিআইসির প্রকল্পে এসকোভেটর দিয়ে মাটি ভরাট করার চুক্তি মোতাবেক কব্জা করে রেখেছেন।
এ ব্যাপারে মোহাম্মদ আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক গালাগালের বিষয়টি অস্বীকার করে তিনি বলেন, ‘আমি ইউএনওকে প্রশ্ন করি, তারে এই কমিটিতে কে রাখছে? ইউএনও ভুল শিকার করে তা পাল্টে দিয়েছেন।’
অভিযোগের ব্যাপারে জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রিয়াঙ্কা পালের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যেহেতু আপনারা অভিযোগটি করেছেন সে মোতাবেক আমি সুন্দর সমাধানের চেষ্টা করবো।##

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১