আজ মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৭:২৪ অপরাহ্


আটে পদার্পণ করলো “দৈনিক আমার সংবাদ”

স্টাফ রিপোর্টার
দেশবরেণ্য ব্যক্তিদের শুভেচ্ছা ও ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে সপ্তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করেছে দৈনিক আমার সংবাদ। দেশের প্রথম সারির এ দৈনিকের আট বছরে পদার্পণ উপলক্ষে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মতিঝিল নিজস্ব কার্যালয় ভরে উঠে ফুলে ফুলে। সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের পদচারণায় মুখর ছিলো আমার সংবাদ কার্যালয়। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে কেক কাটেন আমার সংবাদ সম্পাদক হাশেম রেজা।

এসময় দেশবরেণ্য ব্যক্তিরা সম্পাদকের হাতে ফুল দিয়ে বলেন, লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশে আমার সংবাদ কালের প্রতিনিধিত্ব করবে। মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের জন্য পথ দেখাবে। দেশ ও জাতির বিকাশের জন্য গণমাধ্যমের বস্তুনিষ্ঠতা জরুরি।

তারা বলেন, প্রথম দিন থেকেই লেখক ও পাঠক হিসেবে আমার সংবাদের সঙ্গে আছি। গণতন্ত্র শক্তিশালী করতে, স্বাধীন সংবাদমাধ্যম হিসেবে আমার সংবাদ ভূমিকা রেখে যাবে এমন প্রত্যাশা সব সময় করি। অসামপ্রায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের যাত্রায় দৈনিক আমার সংবাদ ছিলো, আছে ও থাকবে। আমার সংবাদ ভিত্তিহীন সংবাদ পরিবেশন করে না, ভবিষ্যতেও করবে না আমাদের এমন প্রত্যাশা সব সময় থাকবে।

পরিমিতিবোধ নিয়ে বিভিন্ন মতের প্রতিনিধিত্ব করার অব্যাহত ধারা শতবর্ষেও বজায় থাকবে— এমনটাই প্রত্যাশা। অনেকে এ-ও বলেছেন, বাংলাদেশ এখন ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। এমন বাস্তবতায় গণতন্ত্রকে পরিপূর্ণতা দিতে ও জীবন্ত করতে আমার সংবাদের মতো পত্রিকা দরকার। তাদের দায়িত্ব তারা সঠিকভাবে পালন করবে এমন প্রত্যাশা করি।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান বলেন, দেশের সুসম্পাদিত পত্রিকার একটি হলো আমার সংবাদ। আমার সংবাদের প্রতিনিধিরা সব সময় স্বাধীনতার পক্ষে সংবাদ পরিবেশন করেন। আমি যে কয়টি পত্রিকা পাঠ করি তার মধ্যে আমার সংবাদ অন্যতম। আমি যতটুকু জানি, আমার সংবাদ প্রথম সারিতে রয়েছে। দেখতে দেখতে আট বছরে পা দিলো শীর্ষস্থানীয় এই পত্রিকাটি। প্রকৃত তথ্য উদঘাটন করতে তারা আরও বেশি বস্তুনিষ্ঠ ও সাহসী হবে এই প্রত্যাশা করি।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, সাহসিকতার সাথে আমার সংবাদ সাংবাদিকতা করে যাচ্ছে। এটি অব্যাহত রাখতে হবে। কিন্তু সংবাদপত্রের আজ বাংলাদেশে কঠিন সময় যাচ্ছে। সত্য কথা বললে বিপদ আছে। এর মধ্য দিয়েও সত্য কথা বলতে হবে। তবে আমরা যে স্বপ্ন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ করেছি তা এখনো বাস্তবায়ন হয়নি।

বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, বাংলাদেশ এখন ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। গণমাধ্যমের এখনো পূর্ণ স্বাধীনতা নেই। সাংবাদিকরা নিয়মিত নির্যাতিত হচ্ছে, কিন্তু কোনো বিচার হচ্ছে না, এমন বাস্তবতায় গণতন্ত্রকে পরিপূর্ণতা দিতে ও জীবন্ত করতে আমার সংবাদের মতো পত্রিকা দরকার। তারা তাদের দায়িত্ব পালন করবে— এমন প্রত্যাশা করি।

বিএনপির সাংঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ বলেন, আমার সংবাদ ভিত্তিহীন সংবাদ পরিবেশন করে না, ভবিষ্যতেও করবে না আমাদের এমন প্রত্যাশা সব সময় থাকবে। তবে বাংলাদেশে আজ গণতন্ত্র ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।

ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান সম্পাদকের হাতে ফুলের তোড়া তুলে দিয়ে আমার সংবাদ আগামী দিনে ভালো করার এবং প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য শুভ কামনা জানান।

এছাড়াও শুভেচ্ছা জানিয়ে কথা বলেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, ইমরান সালেহ প্রিন্স, সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি।

ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান, বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন, ঐক্যফ্রন্টের দপ্তর প্রধান জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, বিএনপির মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার, ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, যুগ্ম সম্পাদক তানজিল হাসান, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহিদুর রহমান টেপা, মৎসজীবী লীগের সভাপতি সাইদুর রহমান সাইদ, সাধারণ সম্পাদক শেখ আজগর নষ্কর, ১৪ দলের নেতা আতাউল্লাহ খান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান প্রমুখ। এছাড়া মোবাইল ফোনে শুভেচ্ছা জানান গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, আওয়ামী লীগের আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল, জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক কে এম আজম খসরু, ১৪ দলীয় জোটের শরিক জাসদ সভাপতি শরিফ নুরুল আম্বিয়া, জাতীয় পার্টির (মঞ্জু) সাধারণ সম্পাদক, সাবেক মন্ত্রী শেখ শহিদুল ইসলাম, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাৎ হোসেন।
জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেনসহ কয়েকজন কর্মকর্তা।

এছাড়াও প্রেস ইনফরমেশন ডিপার্টমেন্ট (পিআইডি) থেকে আমার সংবাদকে শুভেচ্ছা জানাতে আসে। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন দপ্তর সম্পাদক জাফর ইকবাল ও কার্যনির্বাহী সদস্য সায়িদ আবদুল মালিক।

এছাড়া সকাল থেকে সম্পাদকের হাতে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানায়, আইএসপিআর, ফুটবল ফেডারেশন, জনতা ব্যাংক, ঢাকা কলেজ সাংবাদিক সমিতি, সরকারি তিতুমীর কলেজ সাংবাদিক সমিতি, সবুজ আন্দোলন, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ।

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯