আজ বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০১:৩৬ অপরাহ্


কচুয়ার সাচার কলেজের সেই ২৮ শিক্ষার্থীর দায় কে নেবে ?

সাইফুল ইসলাম সুমন, কচুয়া ॥
কচুয়া উপজেলার সাচার ডিগ্রি কলেজে ২০২০-২০২১ সালের শিক্ষাবর্ষের একাদশ শ্রেনীতে কলেজের পাসওয়ার্ড চুরি করে অতিরিক্ত ২৮জন শিক্ষার্থী ভর্তির বিষয়ে অভিযুক্ত ৩জন শিক্ষক-কর্মচারী অঙ্গিকার নামা দিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষের নিকট।
সোমবার ওই কলেজের অধ্যক্ষ মো: নুরুল আমিনের নিকট আইসিটি বিভাগের প্রভাষক বিপুল কান্তি মালাকার, অফিস সহকারী (কম্পিউটার) হাসিনা আক্তার ও প্রদীপ কুমার ঘোপ পৃথক ভাবে ৩টি কাগজে অঙ্গিকারনামা দিয়েছেন। তাদের লিখিত অঙ্গিকার নামা হুবুহ তুলে ধরা হলো-
নিম্নস্বাক্ষরকারী সাচার ডিগ্রি কলেজের আইসিটি বিভাগের প্রভাষক বিপুল কান্তি মালাকার, অফিস সহকারী (কম্পিউটার) হাসিনা আক্তার ও প্রদীপ কুমার ঘোপ লিখিত অঙ্গিকার করছি যে, ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন সময়ে ভর্তির সংক্রান্ত পাসওয়ার্ড কে বা কাহারা ব্যবহার করে কলেজ কর্তৃপক্ষের বিনা অনুমতিতে ২৮জন শিক্ষার্থীদের ভর্তি নিশ্চায়ন করে যা গর্হিত কাজ। যার সাথে আমাদের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। তবে এই অনাকাঙ্খিত ঘটনার জন্য আমরা দায়িত্বপ্রাপ্ত হিসেবে আন্তরিক ভাবে দু:খিত ও মর্মাহত। ভবিষ্যতে এহেন ঘটনা না ঘটে এ বিষয়ে অধিকতর সতর্ক ও যত্নবান হব।
এমন নাটকীয় অঙ্গিকার নামা দিয়ে অভিযুক্তরা কী পার পেয়ে যাবে, অপরাধ করেও কি তারা ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে যাবে ? তাহলে ওই ২৮ জন শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত দায় কে নেবে এমন প্রশ্ন এখন এলাকার সচেতন মহলের।
উল্লেখ যে, কচুয়ার সাচার ডিগ্রি কলেজে একাদশ শ্রেনীতে বিভিন্ন বিভাগে ৪শ ৮১জন শিক্ষার্থী আবেদন করে। তন্মেধ্যে কলেজ কর্তৃপক্ষ ৩শ ৭৩জন শিক্ষার্থীকে ভর্তি নিশ্চায়ন করে। কে বা কাহারা কলেজের পাসওয়ার্ড হ্যাক করে (চুরি করে) বহিরাগত লোক দিয়ে একাদশ শ্রেনীতে অতিরিক্ত ২৮জন্য শিক্ষার্থীর ভর্তি নিশ্চায়ন করে। ভর্তি নিশ্চায়নের শেষ দিন ২১ সেপ্টেম্বর বিষয়টি জানতে পেরে কচুয়া থানায় একটি জিডি করেন কলেজের অধ্যক্ষ মো: নুরুল আমিন।এনিয়ে বিভিন্ন জাতীয়, স্থানীয় ও অনলাইন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১